‘চসিক নির্বাচন: ৪২টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১৪টি ঝুঁকিপূর্ণ’

বাংলাদেশ

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৪১টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১৪টিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে দেখছে প্রশাসন। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছাড়াও এসব অপরাধ বিবেচনায় এসব জায়গাকে ঝুঁকির তালিকায় রাখা হয়েছে। পুলিশ ও নির্বাচন কমিশন বলছে- ইতিমধ্যে এসব এলাকায় নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

.

প্রার্থীদের উৎসবমূখর প্রচারণার পাশাপাশি গেলো কয়েকদিনের বেশকটি সহিংস ঘটনা- সব মিলিয়ে সংঘাতময় হয়ে উঠছে বন্দরনগরীর নির্বাচন। সহিংসতায় প্রাণ গেছে তিনজনের।  আহত অর্ধশতাধিক। এছাড়া প্রচার নিয়ে রয়েছে প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ।

প্রশাসন বলছে- নানান দিক বিবেচনায় তৎপর তারা। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে অনুপ্রবেশকারীদের শনাক্তে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন,’সাধারণ সময়ের চেয়ে চেকপোষ্ট প্রায় তিনগুন বাড়িয়ে দিয়েছি। কাউকেই নির্বাচনি সহিংসতা বা আইন-শৃংঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি করতে দেব না।’

ঝুঁকিপূর্ণ ১৪টি ওয়ার্ডে ভোটের দিনের পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে কঠোর অবস্থানে আছে নির্বাচন কমিশনও। চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান জানান,’আমার বিষয়গুলো আরেকটু যাচাই বাছাই করছি কোন জায়গাগুলো ঝুঁকিপূর্ণ। সে বিষয়গুলো মাথায় রেখেই কাজ করছি। নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে করার জন্য যা কিছু করা দরকার। যে ধরণের পদক্ষেপ নেয়া দরকার তার সবকিছুই আমরা করবো।’

প্রশাসনের কর্মকর্তা বলছেন, ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র বা ওয়ার্ড নয়-সব ভোট কেন্দ্রেও সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেয়া হবে।