ভারতের কৃষক আন্দোলন থেকে সমর্থন তুলে নিয়েছে দুটি সংগঠন

আন্তর্জাতিক

ভারতের কৃষক আন্দোলন থেকে সমর্থন তুলে নিয়েছে দুটি সংগঠন। দেশটির প্রজাতন্ত্র দিবসে নয়াদিল্লিতে ভয়াবহ সংঘর্ষের পরদিনই আন্দোলন থেকে সমর্থন তুলে নেয়ার ঘোষণা দেয় রাষ্ট্রীয় কিষাণ মজদুর সংগঠন ও ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়ন।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) ট্রাক্টর মিছিল ঘিরে সংঘর্ষের পর কৃষকদের আন্দোলনে ভাঙন দেখা দিয়েছে। সংঘর্ষমুখী বিক্ষোভের একদিন পর আন্দোলনের ঐক্য থেকে নিজেদের সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে রাষ্ট্রীয় কিষাণ মজদুর সংগঠন ও ভারতীয় কিষান ইউনিয়ন। দল দু’টির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, যেভাবে আন্দোলন চলছে তা গ্রহণযোগ্য নয়। তাই তারা যৌথ মঞ্চ থেকে সরে যাচ্ছেন তারা। তবে কৃষকদের জন্য তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।

কিষাণ মজদুর সংগঠনের নেতা ভিএম সিং বলেন, হিংসাত্মক আন্দোলনে আমরা বিশ্বাস করি না। এভাবে আর নয়, এবার আমরা কৃষকদের জন্য ভিন্ন পথে আন্দোলন চালাবো।

ভারতীয় কিষান ইউনিয়নের নেতা ভানুপ্রতাপ সিং জানান, দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, চলতি আন্দোলন থেকে আমরা সমর্থন তুলে নিতে বাধ্য হচ্ছি। মঙ্গলবার দিল্লিতে যা ঘটেছে তার জন্য আমার দুঃখ প্রকাশ করছি। এভাবে কৃষকদের দাবি আদায় হবে না।

আর কৃষকদের যৌথ মঞ্চ থেকে বুধবার (২৭ জানুয়ারি) আবারো আন্দোলনকারীদের শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানানো হয়েছে। পাশাপাশি তাদের অভিযোগ ষড়যন্ত্র করা হয়েছে কৃষকদের আন্দোলনের বিরুদ্ধে।

এদিকে, দিল্লিতে কৃষক বিক্ষোভে সহিংসতার ঘটনায় দাঙ্গা, সরকারি সম্পত্তি নষ্ট এবং পুলিশ সদস্যদের হামলার অভিযোগে ২২টি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। এসব মামলায় এখন পর্যন্ত দুইশ’ বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করা  হয়েছে। মঙ্গলবারের হামলায় এক কৃষক নিহত ও তিন শতাধিক পুলিশ আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবারের বিক্ষোভের পর দিল্লির নিরাপত্তা বাড়াতে আধাসামরিক বাহিনীর অতিরিক্ত ১৫টি কোম্পানি মোতায়েন  করা হয়েছে। দিল্লি, হরিয়ানা ও উত্তর প্রদেশের বেশ কয়েকটি এলাকায় ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন রাখা হয়। এছাড়া পাঞ্জাব ও হরিয়ানায় সতর্কতা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ।