মাঘের দাপটে জড়োসড়ো পঞ্চগড়

বাংলাদেশ

মাঘের শুরু থেকেই পঞ্চগড়ে শীতের তীব্রতা বেড়েছে কয়েক গুণ। ঘন কুয়াশা আর উত্তরের ঠান্ডা বাতাসে জড়োসড়ো পঞ্চগড়ের জনজীবন। কমে এসেছে তাপমাত্রাও।

শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। দিনের বেশিরভাগ সময় ঘন কুয়াশায় ঢেকে থাকছে পথঘাট। দুপুরে সূর্যের দেখা মিললেও তাতে কাঙ্খিত উত্তাপ মিলছে না। শীতের তীব্রতা বেশি থাকছে সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত। সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে কুয়াশাও পড়তে থাকে। রাত বাড়ার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ে ঘন কুয়াশা আর হাড় হিম করা ঠান্ডা বাতাস। উত্তুরে ঠান্ডা বাতাস শীতের তীব্রতা অনেকখানি বাড়িয়ে দিয়েছে।

এদিকে, শীতের তীব্রতা বাড়ায় পঞ্চগড়ের নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষের দুর্ভোগ বেড়ছে। শীতের মধ্যেই পেটের দায়ে কাজে বের হতে হচ্ছে তাদের। প্রয়োজনীয় সংখ্যক শীতবস্ত্র না থাকায় অনেককে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করতে দেখা গেছে। সরকারি বেসরকারিভাবে জেলায় ৩০ হাজার শীতবস্ত্র বিতরণ করা হলেও তা এখন অনেক দরিদ্র শীতার্তদের কাছে পৌঁছেনি। মানুষের পাশাপাশি প্রাণিকূলেও প্রভাব পড়েছে। গবাদি পশুকে চটের বস্তা দিয়ে ঢেকে দিচ্ছেন মালিকরা।

এছাড়া জেলার হাসপাতালগুলোতে বেড়েছে শীতজনিত রোগী। বেশিরভাগ রোগী শিশু ও বৃদ্ধ। তারা ডায়েরিয়া, নিউমোনিয়া ও শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে প্রতিদিন শতাধিক রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন।