স্বজনের দাফন নিয়ে বিড়ম্বনায় পটুয়াখালীবাসী

বাংলাদেশ

একদিকে জলাবদ্ধতা, অন্যদিকে ফাঁকা জায়গা না থাকায় পটুয়াখালী পৌরবাসীকে স্বজনের মরদেহ দাফনে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে।

নতুন করে কবরস্থানের জায়গা নির্ধারণ না করা, আর বর্তমান কবরস্থানের সংস্কার না হওয়ায় করোনার এই মহামারিতে ভোগান্তি বেড়েছে কয়েকগুণ।

প্রিয়জনের স্মৃতি ধরে রাখতে অনেকেই তার স্বজনের কবরটি সংরক্ষণ করতে চান। শত বছরের বেশি পুরোনো পটুয়াখালী পৌরসভার কবরস্থানে এখন আর কবর গুলো সংরক্ষণ করা সম্ভব হচ্ছে না। এখন একটু বৃষ্টিতেই কবর গুলো পানিতে ডুবে থাকে। ফলে গোর খোদকদের পানির মধ্যে নতুন কবর খুড়তে হয়। অনেক সময় বাধ্য হয়ে বাইরে থেকে মাটি, বালি এনে কবর স্থান উঁচু করে কিংবা কাঠের বাক্স করে মরদেহ দাফন করলেও আবার ভেসে ওঠে।

পৌরবাসীর দাফনের জন্য প্রায় সাত একর জমিতে কবরস্থান নির্মাণ করা হয়। তবে শত বছরের বেশি সময়ে শহরের জনসংখ্যা কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেলেও নতুন করে আর কোন কবরস্থান নির্মাণ করা হয়নি। তবে বর্তমানে নতুন একটি কবরস্থান নির্মাণ এবং এই কবরস্থানের জলাবদ্ধতা সমাধানে ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নের কথা জানালেন নির্বাহী প্রকৌশলী।

এদিকে, বর্তমান পৌর পরিষদ ক্ষমতা গ্রহনের পর পরই নতুন কবরস্থানের জন্য জায়গা নির্বাচনের উদ্যোগ নিলেও অর্থের অভাবে তা করা সম্ভব হয়নি বলে জানান মেয়র।

পটুয়াখালী পৌর শহরের প্রধান কবরস্থান সংস্কার ও নতুন কবর স্থান নির্মানে সরকারের সংশ্লিষ্ঠ মন্ত্রণালয় দ্রুত উদ্যোগ নিবে  প্রত্যাশা শহরবাসীর।