ভোলায় করোনা ইউনিটে আরও ৪ জনের মৃত্যু

সকল জেলা

ভোলায় গত ২৪ ঘন্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ও উপসর্গ নিয়ে আরও ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদের মধ্যে সদর উপজেলার চর ইলিশার ইউসুফ বেপারী (৫৫), ধনিয়া ইউনিয়নের মনোয়ারা বেগম (৫০) ও লালমোহন উপজেলার পূর্ব চরউমেদের বাসিন্দা উম্মে সালমা (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে এবং সদর উপজেলার পৌর ৮নং‌ ওয়ার্ডের মুসলিম পাড়ার বাসিন্দা মোঃ কুট্টি (৬০) উপসর্গ নিয়ে সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে মারা যান।

সোমবার ভোলা সদর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মোঃ সিরাজ উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাড়ালো ৬০ জনে। এছাড়া করোনা আক্রান্ত হয়ে জেলার বাইরে ও উপসর্গ নিয়ে আরও অন্তত ৭৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

ভোলার সিভিল সার্জন দপ্তরের দেয়া ৯ আগস্টের রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন কিটস এবং আরটি পিসিআর ল্যাবে ৪১৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৩৭ জন।

এর মধ্যে ৯৯ জন ভোলা সদর, ৬ জন দৌলতখান, ১১ জন বোরহানউদ্দিন, লালমোহনে ৩ জন, ১২ জন চরফ্যাশন, ৩ জন তজুমদ্দিন ও ৩ জন মনপুরা উপজেলার বাসিন্দা। এনিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫ হাজার ৮২ জনে দাঁড়িয়েছে।  

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র আরও জানায়, ভোলায় করোনা আক্রান্ত ৫ হাজার ৮২ জনের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৮৫৪ জন। জেলায় বর্তমানে করোনা সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ২২৮ জন।

এছাড়া হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে এ পর্যন্ত ১ হাজার ৪৬২ জন রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ৪০৯ জন। বর্তমানে সেখানে ১০৮ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা-বরিশাল রেফার্ড করা হয়েছে আরও অন্তত ২০০ জনকে। 

সিভিল সার্জন অফিস সূত্র আরও জানায়, ভোলা থেকে এ পর্যন্ত ২২ হাজার ৬০৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন কিটস এবং আরটি পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়েছে।